খোঁজ পাওয়া গেল নিখোঁজ জামায়াত নেতা ব্যারিস্টার রাজ্জাকের

rajjakব্রিকলেন রিপোর্টঃ জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন। একে একে যখন দলীয় নেতাদের বিচার চলছিল দেশের আদালতে, তিনি হঠাৎ করেই দেশ ছেড়ে চলে আসেন। এরপর থেকে তিনি কোথায় আছেন দলীয় নেতাকর্মীরাও জানত না। অবশেষে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এলেন জামায়াত শিবিরের কেন্দ্রীয় কমটির এই নেতা। যুদ্ধপরাধের দায়ে আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির দণ্ড কার্যকর হবার পর গতকাল লন্ডনে আলতাব আলী পার্কে গায়েবানা নামাজে উপস্থিত হয়েছিলেন আব্দুর রাজ্জাক।
ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক দীর্ঘদিন ধরে লন্ডনে অবস্থান করছিলেন। রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে নিজেকে আড়ালে রেখেছিলেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছিল তিনি নিখোঁজ। গায়েবানা জানাজার নামাজে রাজ্জাক তার বক্তব্যে বলেন, আমরা আজ অত্যন্ত ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপনাদের সামনে দাঁড়িয়েছি। আজকে বাংলাদেশের জন্য একটি কালো দিন। বিশ্বের বিচারিক ইতিহাসে একটি কালো দিন।
তিনি বলেন, যুদ্ধপরাধীদের বিচার নতুন কিছু নয়। বিশ্বে বহু দেশে হয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের পর নুরেমবার্গে হয়েছে। রুয়ান্ডায় হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধের বিচারের ক্ষেত্রে একটি জিনিস স্পষ্ট, বিশ্বের সকল সভ্য সমাজ বলছে আমরা বিচার চাই। এর পাশপাশি তারা বলছে এই যে বিচার হচ্ছে এটি বিচারের নামে অবিচার। অ্যামেনিস্টি ইন্টারন্যাশনাল, ইউকে বার অ্যাসোসিয়েশন, ইন্টারন্যাশনাল বার অ্যাসোসিয়েশন, ইউনাইটেড ন্যাশনের বিভিন্ন সংস্থা সবাই একবাক্যে বলেছে এই বিচার বন্ধুর, স্বচ্ছ বিচার করুন।
ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ছিলেন একজন সৎ ও নির্লোভ মানুষ। আমি ছাত্রজীবন থেকেই তার সঙ্গে ঘনিষ্ট ছিলাম। তিনি মানবতাবিরোধী কোনো অপরাধে জড়িত থাকতে পারেন না। আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন উল্লেখ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, একজন আইনজীবী হিসেবে আমি বলতে চাই নিরপেক্ষ বিচার হলে মানবতাবিরোধী অপরাধে কারোরই ফাঁসি হতো না।

Share This Post

Post Comment