লন্ডনে কমরেড শ্রীকান্ত দাশ স্মরণসভা

বক্তব্য রাখছেন প্রধান অতিথি ধীরেশ চন্দ্র সরকার
বক্তব্য রাখছেন প্রধান অতিথি ধীরেশ চন্দ্র সরকার

ব্রিকলেন রিপোর্টঃ আজীবন ত্যাগব্রতী বিপ্লবী,গণসঙ্গীত শিল্পী ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, মরণোত্তর দেহদানকারী কমরেড শ্রীকান্ত দাশ স্মরণে তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধ্বা জানাতে লন্ডনে পালিত হল স্মরণসভা। ১৯ শে নভেম্বর রোজ বৃহস্পতিবার ২০১৫, সন্ধ্যা ৬টায়, পূর্ব লন্ডনের মন্টিফিউরি সেন্টারে, তাঁর ৬ষষ্ঠ তম প্রয়াণ দিবসে শ্রীকান্ত সংহতি পরিষদ আয়োজন করে এই স্মরণ সভার। এডভোকেট আবেদ আলীর সভাপতিত্বে ও ইফতেকারুল হক পপলুর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন এম সি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ, ধীরেশ চন্দ্র সরকার। সাংবাদিক উজ্জ্বল দাশ শ্রীকান্ত দাশের আত্মজীবনী পাঠ করেন। শ্রীকান্ত দাশের মরণোত্তর দেহদান কালীন দলিল পাঠ করেন নার্গিস কবীর। শোকসভায় বিশিষ্টজনের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব মাহমুদ এ রউফ, উদীচীর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. রফিকুল হাসান খান জিন্নাহ, কবি শামীম আজাদ,কবি হামিদ মোহাম্মদ, কমিউনিস্ট পার্টি যুক্তরাজ্য শাখার সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ এনামুল ইসলাম,যুক্তরাজ্য উদীচীর সভাপতি হারুন অর রশিদ, নারীনেন্ত্রী সৈয়দা নাজনীন সুলতানা শিখা, প্রজন্ম একাত্তরের সভাপতি শহীদ সন্তান বাবুল হোসেইন,যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাহাব উদ্দিন চঞ্চল, যুক্তরাজ্য আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অনুকুল তালুকদার ডালটন, যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সায়েদ আহমদ সাদ, শাবির সহযোগী অধ্যাপক জহিরুল হক শাকিল, যুক্তরাজ্য যুব ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার বিন আলী. সাংবাদিক জুয়েল রাজ ও সংস্কৃতিকর্মী অসীম চক্রবর্তী।

শ্রীকান্ত দাশের কনিষ্ঠ পুত্র সুশান্ত দাশ প্রশান্ত তাঁদের পরিবারের পক্ষ থেকে আগত অতিথিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সভায় বক্তারা কমরেড শ্রীকান্ত দাশের স্মৃতিচারণ করে বলেন শ্রীকান্ত দাসের জন্ম একটি সমাজ-সচেতন অগ্রসর চিন্তার পরিবেশে। পিতার কাছ থেকে মূলত তাঁর সমাজতান্ত্রিক দর্শনের প্রতি আকৃষ্ট হওয়া। তারপর আমৃত্যু একটি শোষণহীন সমাজতান্ত্রিক সমাজ বিনির্মাণে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন প্রশ্নাতীত নিষ্ঠা ও সততার সাথে। কমিউনিস্ট পার্টির বিপ্লবী শৃঙ্খলা বহির্ভূত কোন কিছুর সাথে আপোষ করেননি কখনো। শোষণ ও দারিদ্র –লাঞ্ছিত এই সমাজের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন এক দ্রোহী সংশপ্তক। মানুষকে ভালোবাসার এক অমিত শক্তিতে বলীয়ান ছিলেন তিনি। এই ভালোবাসার জোরেই তিনি আজ নিজ দেহ দান করে গেছেন চিকিৎসাশাস্ত্রের শিক্ষা ও গবেষণার কাজে। তাঁর বিপ্লবী রাজনৈতিক জীবন নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা এবং তাঁর প্রতি বিপ্লবী শ্রদ্ধা জানানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। শ্রীকান্ত সংহতি পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কমরেড শ্রীকান্ত দাশের কর্ম ও জীবনের নানাদিক নিয়ে স্মারকগ্রন্থ প্রকাশের উদ্যেগ নিয়েছেন তাঁরা। স্মারকগ্রন্থটিকে ঋদ্ব করে তুলতে কমরেড শ্রীকান্ত দাশের রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও তাঁর সংস্পর্শে আসা মানুষদের কাছ থেকে স্মৃতিচারণ মূলক লেখা আহব্বান করেন। আলোচনা অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে গণসংগীত পরিবেশনা করেন ফজলুর বারী বাবু।

উল্লেখ্য কমরেড শ্রীকান্ত দাশ ভাটি অঞ্চল খ্যাত সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার আঙ্গাউরা গ্রামে জন্ম নেয়া আজীবন গণমানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে নিবেদিত ছিলেন। উদীচীর কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য, কমিউনিষ্ট পার্টির সদস্য হিসাবে আজীবন কাজ করে গেছেন। ২০০৪ সালে সিলেট এম এ জি মেডিকেল কলেজে, সিলেটের সর্বপ্রথম ব্যাক্তি মরণোত্তর দেহদান করেন। ২০০৯ সালে ১৯ শে নভেম্ভর এই কৃতিমানুষটি মৃত্যুবরণ করেন।

Share This Post

Post Comment