প্যারিস হামলার পর ঢেলে সাজানো হচ্ছে ব্রিটেনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা

Cameron-China-GETTYজুয়েল রাজঃ প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার পর ব্রিটেনের নিরাপত্তা নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামরন। এর অংশ হিসাবে বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং নিরাপত্তা বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করতে নতুন বিনিয়োগের পরিকল্পনাও করছে সরকার। মঙ্গলবার এক ভাষণে তিনি বিশ্বে সন্ত্রাস মহামারী আকারে রূপ নিচ্ছে বলে উল্লেখ করে ব্রিটিশ মিলিটারীকে আরো শক্তিশালি করার পাশাপাশি সন্ত্রাসী প্রতিরোধে আরো কঠোর হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।
১৯শ নতুন চাকুরী সৃষ্টি করে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে ব্রিটিশ বিশেষ ফোর্সকে আরো শক্তিশালি করতে অতিরিক্ত ২ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামরন। এ অর্থ দিয়ে নতুন নিয়োগ নয় বরং অত্যাধুনিক অস্ত্র এবং যুদ্ধের ময়দানে ব্যবহারের জন্য গাড়ি ও হেলিপ্টার কেনা হবে। এছাড়াও এ অর্থ দিয়ে প্রোটাক্টিভ ইকুইপমেন্ট এবং কমিউনিকেশন সিস্টেম কেনা হবে বলেও জানানো হয়েছে। প্যারিস হামলার প্রায় ৪ দিন পর মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী দেশের স্পেশাল ফোর্স সোল্ডার্সসহ অন্যান্য এলিট ইউনিটের জন্য অতিরিক্ত এ অর্থ বরাদ্দের ঘোষণা দিলেও আগামী সপ্তাহে পরবর্তী ৫ বছরের জন্য দেশের ন্যাশনাল সিকিউরিটির নতুন রূপরেখা ঘোষণা করবেন। আইএস জঙ্গীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পাশাপাশি অভ্যন্তরিন নিরাপত্তার বিষয়টি নতুন পরিকল্পনায় অগ্রাধিকার দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

এদিকে হোম সেক্রেটারী থেরেসা মে জানিয়েছেন, দেশের বড় বড় নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর জন্য অন্তত আরো ১হাজার ৯শ নতুন অফিসার নিয়োগ করা হবে। নতুন নিয়োগের মাধ্যমে দেশের বড় ৩টি সিকিউরিটি এজেন্সি অর্থাৎ এম আই ফাইভ, এম আই সিক্স এবং জিসি হেডকোর্য়াটারের প্রায় ১৫ শতাংশ জনবল বৃদ্ধি করা হবে। এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে এ নিয়োগ নিশ্চিত করা হবে বলেও জানান হোম সেক্রেটারী।
ইসলামী জঙ্গিরা ব্রিটেনে বড় ধরনের সাইবার আক্রমণ করতে পারে বলে মনে করছে সরকার। দেশের ট্রাফিক কন্ট্রোল, পাওয়ার স্টেশন এবং হাসপাতালগুলো আইএসের সাইবার আক্রমণের লক্ষ্য হতে পারে বলেও সতর্ক করেছেন ব্রিটিশ চ্যান্সেলর জর্জ অসবোর্ন। সাইবার এ্যাটাক প্রতিরোধের জন্য ২০২০ সালের ভেতরে সরকার বছরে অতিরিক্ত আরো ১ দশমিক ৯ বিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ করবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। চ্যান্সেলর জর্জ অসবোর্ন বলেন, সাইবার স্পেইসের মাধ্যমে সন্ত্রাসী প্রপাগান্ডা ছড়ানোর মতো যথেষ্ট শক্তি আইএসের রয়েছে। তাই আক্রমনের প্রতিরোধে সরকার আগে থেকে সতর্ক অবস্থা অবলম্বন করছে বলে জানান তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার সিটি অব লন্ডনে লর্ড মেয়রের বার্ষিক ব্যাঙ্কুইটে বক্তব্য রাখেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী । এ সময় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরকারের শট টু কিল পলেসির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সমালোচনা করায় লেবার লিডার জেরেমি করবিন এমপির পাল্টা সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামরন বলেন, চলমান অবস্থায় একটি প্রেস রিলিজ ইস্যু করে বা পার্লামেন্টে একটি স্টেইটমেন্ট দিয়েই ফরেইন পলেসি মেইনটেইন করা যাবে না। ফরেইন পলেসি শক্তিশালি করতে হলে নিজে সক্রিয় হয়ে পাশ্ববর্তী দেশগুলোর সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। গত শুক্রবার প্যারিসে পরপর দুটি আত্মঘাতি হামলায় অন্তত ১শ ২৯জনের বেশি নিরীহ মানুষ নিহত হবার পর এ প্রথমবারের মতো ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামরন লিখিত আকারে একটি বক্তব্যে দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার নতুন পদক্ষেপ ঘোষণা করেন।

Share This Post

Post Comment