লন্ডন হাইকমিশনে বিএনপির হামলা

জুয়েল রাজ, লন্ডন থেকে: বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে, রাষ্ট্রপতি বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান ও বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে হাইকমিশনে হামলা করেছে যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা কর্মীরা। সাথে, বঙ্গবন্ধুও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে।

বুধবার বিকালে বাংলাদেশ হাইকমিশনের সমানে যুক্তরাজ্য বিএনপির নির্ধারিত বিক্ষোভ কর্মসূচির এক পর্যায়ে কয়েকজন বিএনপি কর্মী পুলিশি বাঁধা উপেক্ষা করে হাইকমিশনের ভেতরে প্রবেশ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ছিনিয়ে আনে এবং  উত্তেজিত কর্মীরা বঙ্গবন্ধুর ছবি   মাটিতে ফেলে, ছবি ভাংচুর  করে এবং অগ্নি সংযোগ করে।

এসময় কর্মীরা আমার নেত্রী আমার মা বন্ধী হতে দেবনা শ্লোগান দেয়।

উত্তেজিত কর্মীদের শান্ত করতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, এবং পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।
হাইকমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিএনপির নেতাকর্মীরা জোর করে হাইকমিশনে প্রবেশ করে, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছিনিয়ে নেয়। হাইকমিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের  উপরও হামলা করে। ঘটনার প্রেক্ষিতে পুলিশের পক্ষ থেকে দু:খ প্রকাশ করে,মেট্রোপলিটন  পুলিশ বলেছে ব্রিটেনের মতো দেশে এমন আচরণ আমাদের কাছে অপ্রত্যাশিত। ছবি ভাংচুর ও হামলার অভিযোগে  পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে বলে হাইকমিশনকে নিশ্চিত করেছে পুলিশ।  পুলিশ ঘটনা তদন্ত করে আর ও আসামী গ্রেফতার করার কথা জানিয়েছে। ঘটনার সময় লন্ডনে নিযুক্ত হাইকমিশনার নাজমুল কাওনাইন লন্ডনের বাইরে থাকায়, হাইকমিশনারের বক্তব্য জানা যায়নি।
যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক  ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে, একটি দেশের হাই কমিশন যখন রাষ্ট্রপতি বরাবরে স্মারকলিপি গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করে,  সেখানে বিক্ষুব্ধ জনগণ এরকম ঘটনা ঘটানোই স্বাভাবিক”।

মালেক বলেন, বিএনপিও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা পুলিশের অনুমতি নিয়েই  শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করেছে।হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের  অসহযোগীতা ও হুমকি ধামকীর কারণে সাধারণ জনগণ এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

তবে ভাইরাল হওয়া ভিডিও ফুটেজে হামলাকারীদের সবাই বিএনপির নেতাকর্মী বলেই জানা গেছে।
যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক কালের কন্ঠকে, বলেন, বিএনপির এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার নিন্দা জানানোর কোন ভাষা আমার জানা নেই। ব্রিটেনের মতো দেশে যারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেনি,  তাদের নেতাকর্মীদের আচরণেই প্রমাণিত হয় বিএনপি একটি সন্ত্রাসী সংগঠন এবং তাদের নেতা এই সন্ত্রাসীদের গডফাদার। বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বিশ্বে সমাদৃত।   ছবি ভাঙচুর করে তাদের সন্ত্রাসী পরিচয়ই দিয়েছে বিএনপি। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের  পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা প্রকাশ করছি।

 

BE4EC5C0-DF80-4396-86CA-EFA288D9595F

Share This Post